১০ মিনিটেই কেড়ে নিল প্রাণ

276
0

করোনাভাইরাসের প্রকোপ থেকে বাঁচাতে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন তারা। কারো কারো রিপোর্ট নেগেটিভও হয়েছিল।
অথচ হাসপাতাল থেকে আর বাড়ি ফেরা হলো না তাদের। করোনাভাইরাসে ১৪ দিন সময় দিলেও হাসপাতালের আগুন তাদেরকে ১০ মিনিট সময়ও দিলো না।

বুধবার রাত ১০টার আগে রাজধানীর গুলশান-২ এর ইউনাইটেড হাসপাতালে আগুন লাগে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের তিনটি ইউনিট ঘটনাস্থলে কাজ করে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। ফায়ার সার্ভিসের ভাষ্য মতে মাত্র ১০ মিনিট ছিল আগুনের স্থায়ীত্বকাল। তবে ১০ মিনিটের এই সর্বনাশা আগুনেই প্রাণ গেছে ৫ জনের ।

হাসপাতালটির মূল ফটকের পাশেই স্থাপিত আইসলোশন ওয়ার্ডে ছাড়াও চিকিৎসাধীন ছিলেন আরো ৫ জন। গুলশান থানা পুলিশ জানায়, তারা হলেন- খাদেজা বেগম, মো. মাহবুব (৫০), মো. মনির হোসেন (৭৫), ভারনন এ্যান্থনী পল (৭৪), খোদেজা বেগম (৭০) ও রিয়াজ উল আলম (৪৫)। তবে ৫ জনের মধ্যে দুজনের করোনা পরীক্ষার ফলাফল নেগেটিভ পাওয়া যায়। তাদের আইসলোশন ওয়ার্ড থেকে সরিয়ে ফেলার কথা বলেছিলেন চিকিৎসকরা। তবে এর মধ্যেই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিহত হন সবাই।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, হাসপাতালে মূল ভবনে আগুন লাগেনি। ফলে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সকল রোগের চিকিৎসক ও অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অক্ষত রয়েছেন। মূলত জরুরি বিভাগের পাশে করোনা রোগীদের চিকিৎসায় স্থাপিত আইসোলেশন সেন্টারে আগুন লাগে।

এদিকে হাসপাতালটির ব্যবস্থাপনা নিয়ে নানা অভিযোগ করেন রোগীর স্বজনরা। নিহত খোদেজার ছেলে আলমগীর বলেন, করোনার লক্ষণ দেখা দেয়ায় ঈদের দিনই নামী-দামী বেসরকারী বিখ্যাত এ হাসপাতালে মাকে ভর্তি করি। তবে তার করোনা পরীক্ষার ফল নেগেটিভ আসে। তাকে সাধারণ ওয়ার্ডে স্থানান্তরের কথা ছিল। তবে এর আগেই মারা গেলেন মা।

তিনি অভিযোগ করে আরো বলেন, হাসপাতালের চিকিৎসক ও নার্সরা ওই আইসোলেশন সেন্টারে কম যেতেন। ক্লিনার ও অন্যান্য বয়দের পাঠাতেন। সেখানে অব্যবস্থাপণার কারনেই এ ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

ডিএমপির গুলশান বিভাগের উপকমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী বলেন, ঘটনার রাতে ৯টা ৪৮ মিনিটের দিকে ওই হাসপাতালে এক রোগীর স্বজন জরুরী সেবা ৯৯৯ এ কল দিয়ে আগুনের খবর জানালে দমকল বাহিনীকে খবর দেয়া হয়। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে এসি থেকেই আগুনের সূত্রপাত হয়। এছাড়া সেখানে স্যানিটাইজারও ছিল অনেক। তবে এ ঘটনায় প্রকৃত বিষয় উদঘাটনে কমিটি করা হবে। কমিটির সিদ্ধান্তনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।