সিপিডি’র টাকা নিয়ে প্রশ্ন অর্থমন্ত্রীর

335
0

বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) কার্যক্রম নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। গবেষণা করার জন্য কোথা থেকেই বা তারা টাকা-পয়সা পায়, সেটিও জানতে চেয়েছেন তিনি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘তারা গবেষণা প্রতিষ্ঠান, কিন্তু তাদের টাকা কোথা থেকে আসে? সরকারের তো রেভিনিউ পাওয়ার জায়গা আছে। ওরা কোথা থেকে রেভিনিউ পায়? এই রেভিনিউ পেয়ে তারা কী কাজ করে? এই প্রশ্নের জবাব আমি চাই। এটা সম্পর্কে আমি তাদের কাছ থেকে পরিষ্কার স্টেটমেন্ট চাই।’

সোমবার (৪ নভেম্বর) বিকেলে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে নিজ দফতরে জাপান সরকারের এক প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘কতজন লোকের চাকরির ব্যবস্থা সিপিডি করছে? তারা কোন কোন প্রকল্পে বিনিয়োগ করছে? তারা রেভিনিউ কেন পায়? তারা এ দেশের কারও না কারও জন্য কাজ করার জন্য পায়। তারা সেই কাজটা করছে কি না, সেটাও আমার জানা দরকার।’

এর আগে, গত রোববার (৩ নভেম্বর) ‘বাংলাদেশের উন্নয়নের স্বাধীন পর্যালোচনা: ২০১৯-২০ অর্থবছর প্রারম্ভিক মূল্যায়ন’ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধিকে ‘সুতা কাটা ঘুড়ি’র সঙ্গে তুলনা করেন বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) সম্মানীয় ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য। তিনি বলেন, ‘কাটা সুতার সঙ্গে যেমন ঘুড়ির সম্পর্ক থাকে না, তেমনি বাংলাদেশের অর্থনীতিতেও প্রবৃদ্ধির সঙ্গে অর্থনীতির সম্পর্ক পাওয়া যাচ্ছে না।’

সিপিডি ফেলোর বক্তব্য নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানান অর্থমন্ত্রী। সিপিডি ‘সবসময় তাদের লাইনে আছে’ উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘তাদের অবস্থান একরকম এবং আমাদেরটা একরকম। একটা কথা আছে, যার নুন খাই তার গুণ গাই। আমি নুন খাই আমাদের দেশের জনগণের। আমি গুণকীর্তন করব দেশের জনগণের। উনারা কারটা খায়, আমি জানি না। উনারা কার গুণকীর্তন করেন, তাও আমি জানি না।’

অবশ্য সিপিডি যে সবসময় খারাপ বলে, তা নয়— এমন মন্তব্যও করেন মুস্তফা কামাল। তিনি বলেন, ‘সিপিডি কিছু গঠনমূলক তথ্যও দেয়। কিন্তু অনেক সময় গঠনমূলক তথ্য দিতে গিয়ে ওভার ডু (বাড়িয়ে বলে) করে ফেলে।’