রোজিনার জামিন আদেশ রবিবার

47
0

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের করা মামলায় প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামের জামিন শুনানি শেষ হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২০ মে) শুনানির ধার্যকৃত দিনে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ভার্চ্যুয়ালি এ শুনানি হয়। একই সঙ্গে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী শুনানি এক সপ্তাহ পেছানোর আবেদন করেন। নথি পর্যালোচনা করে জামিনের আদেশ আগামী রবিবার ধার্য করা হয়েছে। মুচলেকা ভিডিও দাখিলের জন্য রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের প্ররিপ্রেক্ষিতে আদালত এ সময় মঞ্জুর করেছেন।

এর আগে মঙ্গলবার (১৮ মে) রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে করা মামলায় রিমান্ড আবেদন ও জামিন আবেদন বাতিল করে কারাগারে প্রেরণ করেন আদালত। বৃহস্পতিবার পররবর্তী শুনানির দিন ধার্য করা হয়।

শুনানি শেষে রোজিনা ইসলামের আইনজীবী এহসানুল হক সমাজী বলেন, একটি ভিত্তিহীন অভিযোগে রোজিনা ইসলামকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এজাহারের কোথাও রোজিনাকে গুপ্তচর বলে উল্লেখ করা হয়নি। রোজিনার কাছে যেসব নথি পাওয়া গেছে বলা হয়েছে, এসব নথি কোনোটিই পুলিশ রোজিনার কাছ থেকে উদ্ধার করেনি। নথি উদ্ধারের বিষয়টি পুলিশের কাছে বর্ণনা করেছেন সচিবালয়ের কর্মকর্তারা। আমরা আদালতে সব ধরনের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেছি, বিজ্ঞ আদালত পর্যালোচনা করে শুনানি ঘোষণা করবেন।

এদিকে বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় কোরিয়ার রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে সাক্ষাতের সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী রোজিনা ইসলামের বিষয়ে বলেন, রোজিনার সঙ্গে যা ঘটেছে, তা খুবই দুঃখজনক। তিনি বলেন, সরকারের কিছুই লুকানোর নেই। গুটি কয়েক লোকের আচরণের কারণেই আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে বদনাম ফেস করতে হচ্ছে। সাংবাদিকদের জন্যই আমরা বালিশকাণ্ডের ঘটনা দেখেছি। শাহেদকাণ্ডের ঘটনা প্রকাশ পেয়েছে।

এর আগে গত সোমবার সোর্সের কাছ থেকে একটি চিঠি আনতে গিয়ে সচিবালয়ে ৬ ঘণ্টা অবরুদ্ধ থেকে হেনস্তার শিকার হয়েছেন প্রথম আলোর সিনিয়র সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম। পরে সোমবার রাতে শাহবাগ থানায় মামলা দিয়ে পুলিশের কাছে তাকে সোপর্দ করা হয়।

ওই চিঠির বিষয়ে রোজিনা ইসলামের স্বামী মনিরুল ইসলাম মিঠু মঙ্গলবার গণমাধ্যমকে জানান, চিঠিতে ভ্যাকসিনের তিনটা কোম্পানির নাম লেখা ছিল। ভ্যাকসিন নিয়ে তিনটি কমিটির বিষয়ে লেখা ছিল যে কোন কমিটি সুপারিশ করেছে। তবে চিঠিটা রোজিনা খুলেও দেখেনি।