যুবলীগের কান্ডারি পরশ

470
0

যুবলীগের নতুন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন শেখ ফজলে শামস পরশ। তিনি যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মনির পুত্র।

বাবার সাথে দুই ভাই

ইমেজ সংকটে থাকা যুবলীগে শনিবার (২৩ নভেম্বর) বিকেলে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে যুবলীগের কাউন্সিল অধিবেশনে নতুন নেতৃত্বের নাম ঘোষণা করা হয়। কাউন্সিল অধিবেশনে নতুন নেতৃত্বের নাম ঘোষণা করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। কংগ্রেস প্রস্তুতি কমিটির চেয়ারম্যান চয়ন ইসলাম পরবর্তী চেয়ারম্যান হিসেবে পরশের নাম প্রস্তাব করেন। তখন বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ তা সমর্থন করেন। আর কোনো নামের প্রস্তাব না ওঠায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় যুবলীগের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন পরশ।

বাবার সাথে দুই ভাই

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজিতে পড়াশুনা করা পরশ শিক্ষকতা করেন। এতদিন রাজনীতি থেকে দূরেই সরিয়ে রেখেছিলেন নিজেকে। যুবলীগকে সংশোধন করে মূল স্রোতে ফিরিয়ে আনতে আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ হাসিনা তাঁর ভাতিজা পরশের ওপরই আস্থা রাখলেন। পরশের ছোট ভাই শেখ ফজলে নূর তাপস ইতোমধ্যে রাজনীতিতে এসে সংসদ সদস্য হয়েছেন। চাচা শেখ ফজলুল করিম সেলিম আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য।

যুবলীগের আগের ৬ সম্মেলনের চারটিতেই নেতৃত্বে দেখা গেছে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মনি এবং তার নিকটাত্মীয়দের। পরশকে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করে সে ধারাবাহিকতা এবারো অক্ষুণ্ন থাকলো।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে পারিবারিক আবহে

শেখ ফজলে শামস পরশ যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মনির জেষ্ঠ্য পুত্র। বঙ্গবন্ধুর বোন শেখ আছিয়া বেগমের বড় ছেলে শেখ মনি। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বাবা শেখ মনি ও মা আরজু মণিকে চিরতরে হারান পরশ। তখন তার বয়স মাত্র ৬। ছোট ভাই তাপস মাত্র ৪ বছরের শিশু।

বঙ্গবন্ধু হত্যার পর দুর্বিষহ জীবন কাটাতে হয় পরশ-তাপসকে। কখনও আত্মীয়দের বাসায় লুকিয়ে থাকতে হয়েছে, কখনোবা পালিয়ে বেড়াতে হয়েছে। এভাবে দুই বছর কাটার পর ১৯৭৮ সালে তারা ভারতে চলে যায়। শেখ আছিয়া বেগম তাদের ভারতে নিয়ে যান। চাচা শেখ ফজলুল করিম সেলিম, শেখ ফজলুর রহমান মারুফ, ফুপু শেখ হাসিনা, শেখ রেহেনা তারাও তখন বিদেশে শরণার্থী।

স্ত্রীর সঙ্গে পরশ

শেখ পরিবারের উত্তরাধিকারী পরশ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগ থেকে স্নাতক সম্পন্ন করেন। পরে কলরাডো স্টেট ইউনির্ভাসিটি থেকে স্নাতকোত্তর করে দীর্ঘদিন শিক্ষকতার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনার সঙ্গেও জড়িত ছিলেন তিনি। শুধু তাই নয় সংস্কৃতিমনা পরশ গান বাজনার প্রতি বেশ সৌখিন।

সপ্তম কংগ্রেসের প্রথম অধিবেশন শুরু হওয়ার আগে সকাল ১০টা ২০ মিনিটে চাচা শেখ ফজলুল করিম সেলিম, ভাই শেখ ফজলে নূর তাপস, চাচাত ভাই শেখ ফাহিম, শেখ নাঈমসহ পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে সম্মেলন ভ্যেনুতে আসেন পরশ। ঝাঁকড়া চুলের দীর্ঘদেহী মানুষটি যখন মূল মঞ্চের দিকে যেতে থাকেন তখন সেখানে উপস্থিত জাতীয় নেতৃবৃন্দ তাকে অভিভাদন জানান।

এরপর যুবলীগের একজন নেতা পরশকে মূল মঞ্চে তুলে নেন। মঞ্চে থাকা যুবলীগ ও আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে কুশল বিনিময় করে প্রথম সারির ৫টি চেয়ারের সর্বডানে বসেন তিনি। তার বামে বসেন ওবায়দুল কাদের, তার বামে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, এরপর সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক চয়ন ইসলাম ও সদস্য সচিব হারূনুর রশীদ আসন গ্রহণ করেন।

যুবলীগের বিদায়ী কমিটির কোনো পদে না থাকা পরশের মঞ্চে আসন গ্রহণ নিশ্চিত করে দেয় যে তিনিই হতে যাচ্ছেন যুবলীগের ভবিষ্যৎ কান্ডারি।