ছড়াসাহিত্যিক আলম তালুকদার আর নেই

195
0

করোনা কেড়ে নিল শিশু সাহিত্যিক ও মুক্তিযোদ্ধা আলম তালুকদারের প্রাণ।
বুধবার বিকেলে তার মৃত্যু হয়। আলম তালুকদারের বড় মেয়ে আফিয়া নূর নিপা এ তথ্য নিশ্চিত করেন।
নিপা বলেন, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে বাবা মৃত্যুরবণ করেন। গত শনিবার তার করোনার পরীক্ষার ফল পজেটিভ আসে।
আলম তালুকদারের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুল্লাহ সিরাজী।
আলম তালুকদারের জন্ম ১৯৫৬ সালে টাঙ্গাইলে। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৪ বছর। তিনি ছড়াকার ও গল্পকার হিসেবে ব্যাপক পরিচিত ছিলেন।
তিনি ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে সরাসরি অংশগ্রহণ করেছেন। নিজেকে ‘অবশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা’ হিসেবে পরিচয় দিতেন। ১৯৬৮ সালে দেয়াল পত্রিকার মাধ্যমে লেখালেখি শুরু হয় তাঁর। কর্মজীবনে তিনি গণগ্রন্থাগার অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে তিনি অবসর জীবন-যাপন করছিলেন।
তার ছড়া এবং গদ্যের বইয়ের মধ্যে- ‘ঘুম তাড়ানো ছড়া’, ‘খোঁচান ক্যান?’, ‘প্যাচাল না আলাপ?’, ‘চাঁদের কাছে জোনাকি’, ‘যুদ্ধে যদি যেতাম হেরে’, ‘ডিম ডিম ভূতের ডিম’, ‘সিন্ধুতলে বিন্দু জ্বলে’,‘ছড়ায় ছড়ায় আলোর নাচন’, ‘আমার ছড়া মজার ছড়া’, ‘অন্ধকারের কলস ভেঙে’, ‘চলছে গাড়ি ছড়ার বাড়ি’, ‘ ‘আদিম কালের চাদিম ছড়া’, ‘ছড়া সমগ্র’,‘ছড়া পড়লে চুল পাকে না’। এ ছাড়া গল্পগ্রন্থের মধ্যে রয়েছে ‘ মহাদেশ বাংলাদেশ উপদেশ’,‘অবশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা’, ‘ কেমন করে স্বাধীন হলাম’, ‘নাই দেশের রূপকথা’, ‘রূপকথার অলোকলতা’ ‘অবশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা’, ‘কেমন করে স্বাধীন হলাম’, ‘এক স্বাধীন তিন রাজাকার’, ‘যখন ম্যাজিস্ট্রেট ছিলাম’ সহ গ্রন্থসংখ্যা অর্ধশতাধিক।
জীবদ্দশায় সাহিত্য কর্মের জন্য স্বীকৃতি ও বেশ কয়েকটি পুরষ্কার পেয়েছেন এই শিশু সাহিত্যিক।
আজ রাত সাড়ে ৮টার পরে তাকে মীরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।