চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় তরুণদের উদ্যোক্তা হবার আহ্বান

330
0

কাঙ্খিত সময়ে উন্নয়নের লক্ষমাত্রা অর্জনে তরুণ প্রজন্মকে প্রশিক্ষণ দিয়ে উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। এ দায়িত্ব সরকারের সব বিভাগের, তবে বিসিককে এক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।

শনিবার মেহেরপুরের মুজিবনগরে পর্যটন মোটেলের কনফারেন্স হলে বাাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন বিসিকের কর্মকান্ড গতিশীল করার লক্ষে ‘বিসিকের খুলনা বিভাগের কর্মকর্তাদের নিয়ে দিনব্যাপী উদ্বুদ্ধকরণ কর্মশালা’ শীর্ষক দিনব্যাপী এক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা জানান তিনি। ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের প্রিজম প্রকল্প এবং বিসিক যৌথ ভাবে এ কর্মশালার আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী বলেন, রুপকল্প ২০২১ লক্ষ অর্জন এবং ২০২১ সালে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হতে কাজ করে যাচ্ছে সরকার। ক্ষুদ্র এবং কুটির শিল্পকে বাদ দিয়ে অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং প্রবৃদ্ধি অর্জন সম্ভব না। তাই শিল্পায়ন, প্রবৃদ্ধি অর্জন, রুপকল্প ২০২১ অর্জন এবং শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে দেশে যে প্রচুর তরুণ রয়েছে তাদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। বিশেষ করে ক্ষুদ্র শিল্পের তরুণ উদ্যোক্তারা যাতে সব সুযোগ সুবিধা পায় সে দিকে লক্ষ রাখতে হবে। এজন্য অর্থায়নসহ সব রকমের সহায়তার পাশাপাশি প্রশিক্ষণ জরুরী বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

কর্মশালায় আরো উপস্থিত ছিলেন, মেহেরপুর ২ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান, শিল্প মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ আবদুল হালিম, বিসিকের চেয়ারম্যান মোশতাক হাসান, মেহেরপুরের জেলা প্রশাসক, জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো: আতাউল গণি, প্রিজম প্রকল্পের জাতীয় প্রকল্প পরিচালক ড. মোহাম্মদ আব্দুস ছালাম ও প্রিজম প্রকল্পের টিম লিডার আলী সাবেত।

এ কর্মশালায় বিসিকের খুলনা বিভাগের জেলাগুলোয় কর্মরত প্রায় ৭০ জন কর্মকর্তা অংশ গ্রহণ করেন।
বিসিকের কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে মন্ত্রী বলেন, উদ্যোক্তা খুঁজে বের করে তাদের প্রশিক্ষণ দিয়ে উদ্যোক্তা তৈরীতে বিসিরেক কর্মকর্তাদের সব থেকে বড় ভূমিকা রাখতে হবে। উদ্যোক্তাদের সুবিধার্থে বিসিকের সেবা প্রদান করার মানসিকতা গতে তুলতে হবে এবং উদ্যোক্তা বান্ধব হতে হবে, যাতে তারা হয়রানির স্বীকার না হয় এবং প্রশিক্ষণ ও অর্থায়নসহ যাবতীয় সহযোগিতা পায়।

বিসিকের প্রতিটি বিভাগের জন্য আলাদা ওয়েবসাইট করার পরামর্শ দিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ইন্টারনেট ও ফেসবুক পেইজ হালনাগাদ রাখতে হবে যাতে উদ্যোক্তারা কখন এবং কোথায় কি বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে এবং বিসিকের মেলাসহ সব তথ্য জানতে পারেন। বিসিকের প্রশিক্ষকদের উদ্দেশ্যে প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রশিক্ষকদের আধুনিক হতে হবে এবং প্রযুক্তিগত জ্ঞান থাকতে হবে, না হলে উদ্যোক্তারা প্রশিক্ষণ নিতে আসবে না। এছাড়া, মেহেরপুরে বিসিকের যে প্লট খালি আছে, এগুলো বরাদ্দের পাশাপাশি প্রণোদনা দিয়ে এ এলাকায় ক্ষুদ্র শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উদ্যোক্তা তৈরী ও কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে হবে।

অনুষ্ঠানে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, দেশ চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের দারপ্রান্তে, তা মোকাবিলায় সে ভাবে প্রস্তুতি গ্রহণ করে কাজ করতে হবে। সরকার ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য একটা ভালো সমাজ, দেশ, সরকার এবং উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ রেখে যেতে চায় জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, দেশের কল্যাণে প্রতিটি মূহুর্ত পরিশ্রম করতে হবে, কাজ বা দায়িত্ব এড়িয়ে যাওয়া যাবে না। একইসাথে সব কার্যালয় এবং বিভাগে সেবা প্রদানের মানসিকতা গড়ে তুলতে হবে ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার দিকেও নজর দিতে হবে। তাহলে সাঙ্খিত সময়ে উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশ গড়ে তোলা সম্ভব হবে।